শিরিন !!


আমি জানভীর আহামেদ।ডাক নাম একটা আছে পারিবারিক দেওয়া, রনি।অবশ্য বন্ধুরা আমার নাম সংক্ষিপ্ত করে রেখেছে। জানভীরা। আমার বাবা ও মা গিয়েছেন বড় বোনের বাচ্চা হবে তাই আমেরিকার লুইজিয়ানাতে। বোনের পরেই আমি বাবা মায়ের একমাত্র ছেলে ও দ্বিতীয় সন্তান। থাকবেন সেখানে তিন থেকে চার মাসের মত। আমার বাবা মায়ের জন্য স্টেটস এর মাল্টিপল ভিসা দেওয়া আছে। মুশকিল হল আমি তখন নটরডেম কলেজ এর ইন্টারমিডিয়েট সেকেন্ড ইয়ারে পড়ি। আমার বোর্ড এক্সাম এর আর মাত্র পাঁচ মাস বাকি আছে। কাজেই এই সময় যদি বাবা মা না থাকে তাহলে আমার লেখাপড়ার বারোটা বাজবে মাথায় রেখে আমার দেখা শোনার জন্য গ্রাম থেকে আমার মায়ের চাচাতো বোন শিরিন খালাকে নিয়ে আসা হয়েছে অনেক অনুরোধ করে। কারন শিরিন খালার বিশাল সংসার গ্রামের বাড়ী করিমগঞ্জে। শিরিন খালার স্বামী নেই, তিনি প্রায় দশ বছর হলো মারা গিয়েছেন। আসলে আমার মায়ের তরফেও কোন আপন বোন নেই, বিধায় আমার মায়ের গ্রামের কাজিনদেরর সাথে বেশ যোগাযোগ রাখে বছরে দুই ঈদে তো কিশোরগঞ্জ যাওয়া হয়ই আর সেই সাথে ক্ষেতের বিশাল কৃষিকাজ এর দেখভাল করার জন্য বাবা যখন দাদার বাড়ীতে যেতেন মাঝে মাঝে মা তখন বাবার সাথে যেত তখন তারা ইচ্ছামত আমাদের আত্মীয়স্বজন্দের সাথে যোগাযোগ তৈরী করতেন।তখন অবশ্য আমাদের ঢাকার বাসায় কাজের মেয়ে ছিল। কিন্তু গত দুমাস হলো আমাদের মেয়েটাকে তার বাবা মা আমাদের জেলা শহর কিশোরগঞ্জে নিয়ে গিয়েছে বিয়ের জন্য এবং বিয়ে হয়ে গেছে। যতটুকু জানা গেছে মেয়েটি স্বামী সহ গার্মেন্টস এ কাজ করছে। ঢাকাতেই কোথায়। বাবা মা কে এয়ারপোর্টে আমি নিজে আমাদের টয়োটা প্রিমিও ড্রাইভ করে নিয়ে গিয়েছিলাম। অনেকটা ভাল লাগবে ঢাকা শহর এই কারনে মা জোর করে আমাদের সাথে শিরিন খালাকে এয়ারপোর্ট পর্যন্ত যেতে বললেন। শিরিন খালা যে আগে আসেন নি আমাদের বাসায় তা কিন্তু নয়। আমাদের বাসায় আসলেও মার সাথে আসতেন, মায়ের সাথে একটু ঘুরে কেনা কাটা করে আবার ২/১ দিন পরে চলে যেতেন। আমি খালাকে এগার সিন্দুর ইন্টারসিটি ট্রেন এ তুলে দিতাম । মা-বাবা বিদায় নেওয়ার সময় খুব বার বার বলে গেল আমি যেন গাড়ী নিয়ে বের না হই আর এটা বেশী করে দেখতে বলে গেল শিরিন খালাকে। শিরিন খালা গ্রামের মহিলা লেখা পরা ক্লাস নাইন, পড়ার সময় খালার বিয়ে হয়ে যায়। পার্শ্ববর্তী থানা করিমগঞ্জে এক জোতদার গৃহস্ত পরিবারে। খালু ছিলেন সেই পরিবারের বড় ছেলে। কাজেই খালার কতৃত্বই সেখানে প্রধান। খালার আরো চার পাচজন দেবর ননদ আছেন কিন্তু তারা একবাক্যে শিরিন খালার পরামর্শে চলেন। খালার শ্বশুর নেই, শ্বাশুড়ি আছেন। অনেক বৃদ্ধা, এবং তিনি সংসারের দায়িত্ব বড় বৌ এর হাতে ছেড়ে দিয়ে যেন অনেকটা নিশ্চিত, কতটা নিশ্চিত তার প্রমান হলো খালা আমাদের বাসায় আসলেই প্রতিদিন বাড়ী থেকে না হলেও দশ টি মোবাইল কল শুধু আসবে ক্ষেতের চাষ এর ব্যাপারে, কোন ক্ষেতে কি হবে। বীজ কয় পাতিল নিবে। ওই ক্ষেতের বর্গা কাকে দিতে হবে নাকি নিজেরা করবেন সব অনুমতি পরামর্শ উনার কাছ থেকে নেওয়ার জন্য তার দেবর রা ফোন দেন। আবার বাচ্চাদের লেখাপড়ার খরচ কোন সিন্দুকে আছে, চাবি কোথায় তাও শিরিন খালার কাছ থেকে জেনে নিতে তার নন্দাইরা ফোন লাগাতো। কেন জানি শিরিন খালা আমাকে খুব আদর করতেন সেই ছোট বেলা থেকেই। আমরা তখন খুলনাতে থাকতাম। বাবা ওয়াপদার এসডিও ছিলেন। বছরে একবার করে তখন খুলনা থেকে আমাদের বাড়ীতে আসতাম। আমার দাদার বাড়ী আর নানার বাড়ীর দুরত্ব আট কিলোমিটার এর মত। তাই আমরা অর্ধেক সময় থাকতাম দাদার বাড়ী আর অর্ধেক নানীর বাড়ী। আমি ওয়ান অথবা টু তে পড়তাম তখন শিরিন খালার বিয়ে হয়ে গিয়েছে, খালারও আমার বয়েসী এক ছেলে আবার আমার চাইতেও পাচ বছরের বড় আরেক ছেলে আছে। বিয়ে হওয়া সত্তেও শিরিন খালা আমার মনে পড়ে সারাদিন আমাদেরকে নিয়ে বনে বাদাড়ে বিভিন্ন বনফুল,বেতফল পেড়ে দিত,পাখি প্রজাপতি এসব দেখাত, খাবার জিনিস যেমন বড়ই ভর্তা ইত্যাদি বানালে সবার আগে আমার ভাগেরটা আমাকে দিত তার পরে তার ছেলেদের কে দিত। আমার মনে হয় এত বড় সংসার ফেলে তিনি তিন মাসের জন্য আমাদের বাসায় এসেছেন সেই ছোট বেলার আদরের টানেই। কজেই খালাকে কোন প্রকার কষ্ট দেওয়া না হয় সেকারনে বলেছিলাম-খালা তুমি কিন্তু আমার জন্য একদম চিন্ত করবা না। একবারে রান্না করবা আমি ফ্রিজ থেকে নিয়ে ওভেনে গরম করে খাব। সকালে যেন কষ্ট করে উঠতে না হয় তাই বলেছিলাম – রাতে যা রান্না করে রাখবে তাতেই আমার হবে। -ধুর বাবা তাইলে কেমনে হইবো, সারাদিন তোমার ক্লাস, সকালে গরম কিছু পেট ভইরা না খাইলে হইবো। শিরিন খালা তার স্বভাব সিদ্ধভাবে মুখভর্তি পান চিবোতে চিবোতে বললো। শিরিন খালার যত্ন আর আমার পরীক্ষার পড়া এই মিলে দিন পার হচ্ছে। মাঝে মাঝে খালা আমাকে আমাদের বসার রুমের বড় টিভিটা একা দেখতো আর বলতো – ও বাবা রনি সারা দিন-রাইত কি খালি পড়বা ? আসো একটু টিভি দেখো, বইসা। আমি আমার রুম থেকে এসে বসলে খালা জিগ্যেস করে কি খাইবা বাবা কিছু না। একটু পরেই তো রাতের খাবার খাবো। উঁহু দাড়াও আমি তোমার লাইগ্য হরলিক্স বানাইয়্যা আনতাছি।–আমি জানি, আমি না বললেও খালা বানিয়ে আনবেন। কাজেই আমি বললাম খালা তোমার জন্যও আনবা কিন্তু আর নাইলে আমি খাবো না। আচ্ছা। একটু পরে খালা আমার জন্য বিশাল জাম্বো কাপে আর খালার জন্য তার নির্দিষ্ট করা চায়ের কাপেই(খালাই পছন্দ করেছেন) হরলিক্স নিয়ে এলেন।বড় সোফায় আমার পাশে বসে আমার আমার মাথার চুলে হাত বুলিয়ে আমাকে হরলিক্সের কাপটা ধরিয়ে বললেন খাও বাবা, যে পরিশ্রম এই পড়াশোনার মধ্যে বুঝলা বাবা বিয়া করা বেডাই নেরও অত পরিশ্রম হয় না। বিয়া করা বেটাদের পরিশ্রম হয় মানে-আমি অবাক হয়ে জিগ্যেস করলাম। হেগো পরিশ্রম হয় না মানে! একেতো বাইরে করে পরিশ্রম পয়সা কামানোর লাইগ্যা আর ভিতরে করে পরিশ্রম বৌ এর লাইগ্যা। আমি আবার একটু অবাক হলাম বউ এর জন্য মানে? খালা এবার শরীর কাপিয়ে খিল খিল করে হেসে বলোল-ইসিরে এক্কবারে যেমুন কিচ্ছু বুঝনা, যুয়ান পুরুষ-মাইয়া এক হইলে কি করে।? এক্কেরে ঘাম ছুইট্ট্যা যায়। এবার আমি বুজতে পারলাম খালা আসলে নারীপুরুষের সেক্স এর কথাই বলছে। আসলে সেক্স এর ব্যাপারে বরাবরই আমার অজ্ঞতা ছিল, এর কারন আমি কখনো কো-এডুকেশান এ পড়ি নি। যে কারনে সব সময় ছেলে বন্ধুদের সাথে থাকার কারনে, মেয়েদের কে নিয়ে বা মেয়েলি ব্যাপার, বিয়ে ও যৌন কথাবার্তা কমই হত। কিন্তু আমার প্রশ্ন ঘাম ছুটবে কেন। আবার আমার মনে হল ছুটারই কথা। একবার বন্ধুদের সাথে আলাপে আলাপে আমার এক বন্ধু শিখিয়েছিল কিভাবে হস্তমৈথুন করতে হয়। আমি চোখ বন্দ করে মনিষা কৈরালার শরীর কল্পনা করে আমার অঙ্গে হাত মেরেছিলাম, আমার অঙ্গ লোহার মত শক্ত হয়েছিল কিন্তু বন্ধুর ভাষ্য অনুযায়ী বীর্যপাতের কোন লক্ষন দেখা যায়নি। পরে হাতে অলিভ অয়েল নিয়ে চালিয়েছিলাম তাতেও কিছু হয় নি, তখন বিরক্ত হয়ে বাদ দিয়েছিলাম।এর পরে আর হস্তমৈথুন করার চেষ্টা করিনি।আর সেখান থেকে ধারনা হয়েছে হয়তো সেক্স করাটা খুব পরিশ্রমের। এখন খালার কথা শুনে মনে হচ্ছে, হ্যা এরকম হতেও পারে। খালার কথা শুনে আমার শরীর এ একটা শিহরন এর মত তৈরি হলো। সেই সাথে আমার আন্ডার ওয়ার ফ্রি ট্রাউজার হওয়ার কারনে আমার ধোন বেশ শক্ত হয়ে গেলো। আমি হরলিক্স এর বোতলে একবার চুমু দিচ্ছি আবার খালার দিকে তাকাচ্ছি। একবার দেখলাম আমার খালার চোখ আমার ট্রাউজারের দিকে, আমি দ্রুত এক পায়ের ঊপর আরেক পা তুলে তা ঢাকতে চেষ্টা করলাম, কিন্তু যা দেখার তা শিরিন খালা দেখে ফেলেছে। তার মুখে একটা মুচকি হাসি দেখতে পারলাম। রাতে ক্ষেতে বসে খালাকে একটু অন্য নজরে দেখলাম। শিরিন খালার উচ্চতা হবে পাঁচ ফুট তিন ইঞ্চির মত। বয়স অনুমান আটত্রিশ থেকে চল্লিশএর ভেতর হবে। একটু মোটা ধাচের গ্রামের মহিলারা সাধারনত যেরকম হয়। দারুন ফর্সা আমার এই শিরিন খালা। ঢাকাতে এই কয়েকদিন থাকার কারনেই কিনা আরো ফর্সা লাগছে। মাথার চুল কোমর পর্যন্ত পরে। চুলগুলো আধাভাঙ্গা কোকড়া। সুন্দর পানপাতার আকৃতির মুখের মধ্য বড় বাকা ভুরু, বড় সুন্দর পটল চোখ আর সেই সাথে সুন্দর টিকোলো নাক। ফ্রিজের নিচের ডালাটা খোলার সময় শারীর আচল অনেকটা নীচে নেমে যাওয়াতে দেখলাম খালার বুক দুইটা বিশাল বড়, কিন্তু অল্প বয়েসী মেয়েদের মত এত চোখা খাড়া না। পেটের সাথে মেশানো। আসলে খালাকে আমি এর আগে এভাবে কখনো দেখিনি। পরেরদিন শুক্রবার । আমার কলেজ বন্ধ। তাই অনেকটা রিলাক্স হয়ে বাসায় নাস্তা খেয়ে পড়ছিলাম। বারোটার দিকে খালা হাক দিলেন- রনি বাবা গোসল করবা না, শুক্রবার তো জুম্মার নামাজ পড়ন লাগবো। আমি অনিচ্ছা সত্ত্বেও বারান্দায় গিয়ে গায়ের টি শার্ট টি খুলে একটু রোদ মাখানোর জন্য দাড়ালাম। পিছনে দেখলাম শিরিন খালাও আসছে আমার এই কয়দিনের ব্যাবহার করা প্যান্ট শার্ট ধুয়ে তারে টাঙ্গিয়ে দেওয়ার জন্য। আসলে শিরিন খালা এসেছে পরে এই প্রথম শুক্রবার হওয়াতে আমরা সারাদিন একসাথে। এর আগে সেই ভোর বেলায় আমি উঠে আটটার আগে ক্লাসে যেতে হবে তাই খুব সকালে গোসল সেড়ে ফেলতাম। আমি যখন তারে আমার টি শার্ট ঝুলিয়ে রাখছিলাম। আমার খালা ততক্ষনে পাশে এসে তারে অন্য কাপড় রাখার সময় আমার বগলে অনেক দিনের না কাটা লোম দেখে বললেন বগলে এইগুলা কি ধানক্ষেত বানাইছ নাকি, কাটনা ক্যান ? মুসুলমান মানেই দায়েমী সুন্নত পালন করা লাগে। এইটা জানো। আমি একটু লজ্জা পেলাম- পরীক্ষার পড়াতো খালা সময় পাই না। খালা চলে গেলেন প্রায় পনের মিনিট পরে আমারে ডাক দিলে রনি বাথরুমে আসো। আমি গেলাম দেখি খালার সরার নাম নাই। কাপড় ধুতে ধুতে খালার পেটিকোট আর নীচের শাড়ী ফর্সা পায়ের সাথে ভিজে লেপ্টে আছে। আমি যেতেই আমাকে বলল হাত তুল- আমি হাত তুলতেই দেখি খালা শিয়ালকোটের ছোট কাছি(সম্ভবত বাবার সেভিং কীটস থেকে আনা) দিয়ে আমার বগলের চুল ছাটতে শুরু করে দিয়েছেন। আমাকে বললেন- নইড় না, এইগুলা শেভ কোইরোনা কোন সময়, কেঞ্চি দিয়া ছাইট্ট্যা রাখবা। শেভ করলে চুলকাইব। আর বগলে এত গন্ধ করে কেন?-বলেই খালা তার নাক একদম আমার ডান বগলে ঘষে দিল। আমি শিরশির এর কারনে হেসে ফেললাম। এবার খালা আমার বাম বগল ধরলো। আমি বললাম -খালা তুমিও কি এরকম ছাট? আমার কথা বাদ দেও, আমি বুইড়া বেডি, আমার আর বিয়া সাদি হইবো না। কিন্তু তুমরা যোয়ান পোলা তুমরা থাকবা পরিষ্কার, পরিচ্ছন্ন। খালার মুখ থেকে খুব সুব্দর একটা জর্দা মিশ্রিত পানের গন্ধ পাচ্ছি, এটা আমার কাছে খারাপ লাগে না। খালা কি বলো!!, তুমি এখনো কত সুন্দর? তুমি যদি সালোয়ার কামিজ পড় না যে কেও তোমাকে দেখলে পচিশ বছরের মেয়ে বলবে। হইছে থাক, আর খালারে পটাইতে হইবো না।- আমার বগল সাফ করা হলে খালা আমাকে গোসল করে নিতে বলল। খালা তার হাতের উপর পরা আমার বগলের লোমগুলো ফু দিয়ে কমোট এর ভেতর ঝেড়ে ফেলে দিল।আমি গোসল সেড়ে নামাজের জন্য মসজিদের দিকে পা বাড়ালাম। নামাজ শেষে এসে দেখি খালা তখনো কাপড় ধুচ্ছে। কিন্তু ততক্ষনে খালা তার গায়ের খয়েরী ব্লাঊজ টা খুলে ফেলেছেন। আমি খালার বাম পাশ দাড়ানোয় খালার বাম বাহু কাধ পর্যন্ত সম্পুর্ন উম্নুক্ত দেখলাম। মাগো কি ফর্সা আর মসৃন খালার উর্ধ বাহু।আহা যদি একটু ঠোট ছোয়াতে পারতাম। আমি মুগ্ধ হয়ে দেখছিলাম। -কি ভাত খাইবা অহন? আমার এইরকম হা হয়ে তাকে দেখতে থাকা নজর এড়ালো না খালার, আমাকে বলল – কি দেখতাছ এমুন কইরা মনে হয় আমারে গিল্ল্যা খাইবা। আমি লজ্জ্যা পেয়ে গেলাম, দ্রুত বললাম “না না। খালা একটা জিনিস আমার মাথায় আইছে।“ কি তোমার মাথায় আইলো রনি বাবা। আমার মত বুড়ীরে নিয়া। এখন বলবো না খালা খাওয়ার সময়ে বলবো। আইচ্ছা তাইলে একটু দাড়াও বাবা, আমি গোসলডা ঝটপট সাইরা লই। শিরিন খালা গোসলের পর মাথায় একটা গামছা বেধে বেরিয়ে এসেছেন। শাড়ী পরেছেন একটা নরমাল প্রিন্টের, শাড়ীটাতে নীল আর ডীপ সবুজের জংলী প্রিন্ট আর সেইসাথে নীল বয়েলের ব্লাউজ। ফর্সা শিরিন খালাকে দারুন লাগছে, অনেকটা এক দুজে কে লিয়ে ও বিখ্যাত কুলী ছবির নায়িকা রতি অগ্নিহোত্রীর মত। মনে হয় গ্রামের সব মহিলারাই একইরকম হয়। যেমন খালা ব্লাউজের নীচে ব্রেসিয়ার পরেনি আমি শতভাগ নিশ্চিত।যে কারনে খালার অতি বড় বড় স্তন ভার সামলাতে না পেরে নীচের দিকে অনেকটা নেমে গেছে। তারপরেও সামনের দিকে যতটা উচু হয়ে আছে শাড়ীর ভেতর থেকে তাতে বোঝা যায় কি বিশাল খালার বুক। খালা ডাইনিং টেবিল এর দিকে মুখ করে দরজার দিকে গিয়ে গামছাটা খুলে দুহাত পিছিনে নিয়ে গামছাটাকে লাঠির মত সোজা করে পিছনের চুলে বাড়ী দিয়ে পানি ঝরাতে লাগলো। আর সে কি বুকের দুলুনী মনে হছে যেন দুটো বড় বড় লম্বা পেঁপে খালার ব্লাঊজের ভেতর দুলছে। খালা গামছাটা বারান্দায় তারের উপর দিয়ে চুল খোপা করে ডাইনিং এর কাছে আস্তেই আমি বললাম খালা মুখে কিছু মাখলানা? আমি এইতান কিছু লাগাই না। আমি উঠে গিয়ে আমার রুমের থেকে নিভিয়া মিল্ক টা নিয়ে এসে আমার হাতে চাপ দিয়ে নিয়ে খালার হাতে দিলাম “ এই গুলা লাগাও এইটা শীত গরম সব সময় লাগানো যায়।“ খালা তার হাতের টুকু তার মুখে মাখতে লাগলো। খালার শরীর থেকে আমাদের বাথ রুমে রাখা কেমি সাবানের সুন্দর একটা হালকা ঘ্রান আসতে লাগলো। আমি আমার হাতের নিভিয়া টুকু নিয়ে দ্বিধা করছিলাম কি করবো। সাহস করে খালার ঘাড়ে লাগিয়ে দিলাম। দেখলাম খালা একটু কেপে উঠলো কিন্তু কিছুই বলেন না। খালা এখনো তার মুখে নিজের হাত টা ঘষাঘষি করছিলেন।আমি পিছনে এসে খালার পিঠের যতটুকে উন্মুক্ত ছিল তাতে ও মাখতে লাগলাম। খালা দেখলাম তার বুকটা সামনের দিকে চিতিয়ে দিয়ে ব্লাউজের পিছনের দিক্টা ফাঁক করতে চাইছেন যেন আমার হাত আরো একটু ভিতরে যেতে পারে। আমি আমার হাতের আঙ্গুল ঢুকিয়ে যতটুকু পারি নিয়ে গেলাম ও ডলতে থাকলাম মার্বেল টাইলসের মত মসৃন খালার পিঠ। শেষে হাত বের করে আবার লোশান নিয়ে খালার দুই হাতের কব্জির উপর থেকে ব্লাউজের হাতা পর্যন্ত লোশান মাখলাম।খালার পুরো শরীরটা যেন তুলতুলে নরম একটা বালিশ। খালা যেন অন্যরকম একটা আবেশী মজার মধ্যে ছিলেন। আমি আরো কিছু পাওয়ার আশায় বললাম -“কমরে লাগাবো?” -না লাগতো না, দেখমুনে খালার যত্ন কতদিন থাকে। খালার রান্না অপুর্ব, সময়েতে আমার মায়ের চেয়েও অনেক ভালো। এই যেমন আজকে খালা ফ্রিজের থেকে বের করে কই মাছ বরবটি দিয়ে এত সুন্দর করে ভেজেছে। অমৃত। বাড়ীর বিভিন্ন বিষয়ে খালা অনেকটা বক বক করে যেতে লাগলেন। আমি টের পাচ্ছিলাম একটু আগে খালার ঘাড়, হাত ও বাহু স্পর্শ করার কারনে আমার অর্ধ উত্থিত পুরুষাঙ্গ এখন নিস্তেজ হয়ে যাওয়ার কারনে স্মৃতি স্বরুপ আমার অঙ্গের মাথায় পিচ্ছিল পানি এসেছে। অহ বাবা কি জানি কইবা, কইছিলা? কি তুমার মাথায় আইছে? বলবো! তুমি রাগ করবানাতো? রাগের কথা হইলে তো করবামই। নামাজ থেকে এসে তোমার খোলা হাতটা যখন দেখলাম না, তখন কি মনে হইছে জানো। কি!?- খালা অনেকটা বিস্ময় নিয়ে খাওয়া বন্ধ করে আমার জিগ্যস করলেন। তুমি যদি হাতা কাটা ব্লাউজ পরতা না তাহলে খুব সুন্দর লাগতো। খালা এবার হাসতে হাসতে বললেন-ইয়াল্লা বাজান এইতা কিতা কও,আমারার লাগান বুইড়া বেইট্ট্যান রে এইতা পরলে বালা লাগবো নি। কি যে বলো না খালা, সুবর্না মুস্তাফা পরে, তুমি দেখ না কত সুন্দর লাগে। হেরা তো পরবোই, ফিল্মের নায়িকা না। আমি রোজ দেখা আমাদের রাস্তার ওইপারের চার তলার সেই মহিলার কথা বলতে লাগলাম,- জানো খালা, আমাদের বাড়ীর বিপরীতে রাস্তার ওই পাশে একটা পাঁচ তলা বিল্ডিং দেখছ না। হেই বিল্ডিং এর এক মহিলা থাকে তোমার চেয়েও বয়েস অনেক হবে। ফর্সা, মনে হয় হাসবেন্ড নাই, সব সময় সাদা কাপড় আর সাদা হাতা কাটা ব্লাউজ পরে, ভোর বেলায় বারান্দায় দাড়ায়া ব্যায়াম করে, খুব সুন্দর লাগে জানো। -ও বুজজি, ওই বেডিই আমার ভাইগনার মাথা খাইতাছে। আইচ্ছা আমারে দেহাইওছেন । -তাইলে কালকে ভোরেই আমি তোমাকে দেখাবো এটা প্রায় আরো এক সপ্তাহের পরের ঘটনা। খালা মেনে নিয়েছেন, তিনি হাতা কাটা ব্লাউজ পরবেন। কারন সেদিন রাতগিয়ে ভোরে আমি এলার্ম দিয়ে রেখেছিলাম। উঠে বারান্দায় এসে যখন দেখলাম সেই মহিলা ব্যায়াম করছেন, আমি দ্রুত খালার রুমের( আমাদের গেস্ট বেড রুম)”খালা” বলে দরজা ঠেলা দিতেই দরজা খুলে গেলো। দেখলাম খালা নামাজ পরছেন। মনে হয় খালা লেট করে ফেলেছেন। কারন এখন ছয়টা বেজে গেছে। চারিদিক বেশ ফরসা। আমি অপেক্ষায় থাকলাম, সালাম ফেরানোর সাথে সাথেই আমার দিকে তাকালো, আমি আমার চোখ নাচিয়ে বললাম দেখবে না? কিতা? ওইযে,ওই মহিলা। খালা একটু মুচকি হাসি দিয়ে যায়নামাজ গুটিয়ে আলানাতে রেখে আমার পিছে পিছে বারান্দায় আসলেন। আমরা বারান্দায় না গিয়ে বারান্দার দরজার উপর দাঁড়িয়ে দেখতে থাকলাম। যেন ঐ মহিলা আমাদের বারান্দায় তাকালে আমাদেরকে দেখতে না পারে। মহিলা এবার কোমরের দুপাশে হাত রেখে শরীর ডান বাম করছেন।বরাবরের মতই সেই সাদা শাড়ী ও সাদা হাতা কাটা ব্লাঊজ, ভেতরে সাদা ব্রা এর স্ট্র্যাপ দেখা যাচ্ছে।সুন্দর ফর্সা শরীর। বেশ কয়েক মোচড় দেওয়ার পর দুহাত সোজা করে মাথার উপরে নিয়ে স্ট্রেট সোজা করে সামনের দিকে কোমর স্থির রেখে উর্ধাংগ নীচে মাটির দিকে নিয়ে এলো। আর একারনেই মাথার উপরে হাত তোলার সময় মহিলার ধবধবে ফর্সা বগল বার বার দেখা যাচ্ছে। মনে হয় উনি প্রতিদিনই সেভ করেন। অনেকটা বেশী ফর্সার কারনে সবুজাভ একটা আভা পরে তার বগলে। এই মহিলা আমার কাছে এক রহস্যময়ী চরিত্র আমি কখনো তাকে নীচে দেখিনি। তার ফ্লোরে বা ওই বারান্দায় কখনো অন্য কোন মানুষও দেখিনি। অন্য সময় দেখি বারান্দাও তিনি নিজে ঝাড় দেন। একা থাকেন মনে হয়। আমার ঘাড়ের পিছনে খালার গরম নিশ্বাস এসে লাগছে। মহিলাকে তন্ময় হয়ে দেখাতে এতক্ষন খেয়াল করিনি, আমার পিঠের ডান পার্শে একটা নরম বালিশের মত। পরক্ষনেই বুঝতে পারলাম এটা খালার বুক।মাগো এত্তো নরম হয়!! কিন্তু আরাম টা নেওয়ার আগেই খালা সরে গিয়ে বলল -হু বুঝজি আমার তাইলে এইরহমের ব্লাউজ পরনই লাগবো, এই বেডির হাত থাইক্ক্যা আমার ভাইগন্যা রে বাচানোর লাইগ্যা। তবে আর কক্ষনো তুমি এই বেডিরে ভোর বেলায় দেখতে আইতে পারবা না।এইবার আহো পড়তে বস বাবা–খালা এবার কিচেনের দিকে যেতে থাকলো। খালা তুমি পড়, দেইখ্যো আমি বারান্দার এই দরজাই বন্ধ করে দিব-আমি হেসে হেসে মজা করে বললাম। হইছে থাক বুড়ী খালার দিকে আর নজড় দিও না, এইবার পড়তে বস বাপ, আমি তুমার নাস্তা বানাই। সেদিনই বিকালে আমি খালার জন্য নিউমার্কেট এর গুলজারে গিয়া তিন কালার এর একটা মেরুন, একটা নেভী ব্লু আর একটা বটল গ্রীন কালার এর বেক্সী বয়েল দিয়ে তিনটি হাতা কাটা ব্লাউজের অর্দার দিলাম। খালার ব্লাউজের মাপ শুইন্যা মাষ্টার এর ভিমরী খাওয়ার দশা।খালারে যখন জিগ্যেস করেছিলাম খালা মাপ কত দিব। খালা বলেছিল -বিয়াল্লিশ দিবা মাগো এত বড়। এই মারমু একটা থাপ্পর, মা খালার বুক লয়া লড়াচরা করো-বলেই খালার খিল খিল হাসি। আমি যখন বের হতে যাব তখন খালা আবার বলল এই শুনো! শুনো বাবা, দর্জিরে কইবা নীচে গিট্ট ফিতা দেয় যেন। আর কইবা ব্লাউজের ছাট যেন চোলি ছাট করে। চোলি ছাট!! সেটা কি খালা? আমি একটু অবাক হলাম। এইতা অহন তুমার বুইজ্জ্যা লাভ নাই, অহন যাও। বিয়াল্লিশ এর কথা শুনে মাস্টার যখন আমার দিকে তাকিয়ে ছিল তখন আমি বল্লাম-নীচে গিট্ট ফিতা দিবেন, আর চোলি ছাট হবে। -বয়স্কা মহিলা?- মনে হলো মাস্টার এর চোখ থেকে বাসনা লোলুপ দৃষ্টি টা বিদায় হয়েছে।উত্তরে আমি বললাম হ্যা। ব্লাউজ গুলো যেদিন এনে দিলাম সেদিন ও সেই সাথে আমি আমার সাপ্তাহিক টার্ম পরীক্ষা নিয়ে ব্যাস্ত ছিলাম। আর এ তিন চারদিন আমি লক্ষ্যই করিনি খালা ওই ব্লাউজ পরেছেন কিনা। কিন্তু যেদিন দেখলাম খালা পরেছে, সেদিন আমি বুঝতেই পারিনি কখন খালা পরল । রাতে পড়া শেষ করে, একটু হাটা হাটি করবো বলে আমি লিভিং রুমে এসে দেখলাম খালা টিভি দেখছেন, চ্যানেল আই। থ্রী সিটার এ হেলান দিয়ে শুয়ে। আমি যেতেই খালা উঠে বসার চেষ্টা করতে লাগলো আর তখনই খালার বুকের আচল ঠিক করতে গিয়ে বাম কাধের উপর থেকে শাড়ী সরে যাওয়াতে দেখলাম খালা সেই মেজেন্টা কালার এর হাতাকাটা ব্লাউজ টা পড়েছেন। আমার কাছে মনে হলো একরাশ খয়েরি গাঁদা ফুলের মধ্য থেকে খালার ফর্সা হাতটা বেরিয়ে এসেছে। কারন খালার শাড়ীটা ছিল হালকা লাল ও খয়েরি কালার এর কম্বিনেশান ছাপ। দেশী সুতি শাড়ী। ওমা খালা তুমি হাতাকাটা ব্লাঊজ পরছো।, কি সুন্দর লাগছে, তুমি আমাকে বলনি কেন?-আমি বিস্ময় এ আনন্দে, একসাথে বলে ফেললাম। এহ তুমারে দেখাইয়া পিনতাম নাকি! তাইলে তো আমারে গিল্ল্যা খাইতা। খালার এই আদি রসাত্মক কথায় আমার আবার কামদেব খাড়া হয়ে গেলো। আমি ও সাহস করে বলে ফেললাম-আইচ্ছ্যা খেতে হবে না খালা, আপাতত আমারে অর্ধভোজ করতে দাও। মানে?!! খালার চোখে বিস্ময়। আমারে তোমার হাতে আমার ঠোট,নাক, গাল ছোয়াইতে দেও, কারন কথায় আছে “ ঘ্রানে অধভোজ।“– বলতে বলতে আমি সোফার পিছন থেকে সামনে এসে একবারে খালার উর্ধবাহু দুই হাতে ধরে খালার পাশে বসে গেলাম। ধরবার সময় ডান হাতের সবগুলো আঙুলগুলো খালার বাহুর নীচে দিয়ে নেওয়ার সময় খালার স্তনের পার্শে গভীর ঘর্ষন করে গেলো। খালা এইসব আকস্মিকতায়-“এই!!” বলে চাপা স্বরে একটা আর্ত চিৎকার করে উঠলো। বাবা না এইসব করে না, এইটা ঠিক না।–খালা আমার কাছ থেকে হাত টা সরিয়ে নিতে চায়। বলেন-তুমি না কইছ শুধু চাইয়া দেখবা। অহন এইতা কিতা কর।! আমি হাত ধরে রেখেই আদুরে গলায় বলি- উঁহু না…হ……খালা একটু খালি স্পর্শ নিবো। বলেই আমি খালার উর্ধবাহুতে মসৃণ ত্বকে কনুই হতে নাক ছোয়াতে লাগলাম। হালকা দুই তিনটা চুমু দিলাম। খালা মনে হলো একটু কেঁপে উঠলো।আহ কি মসৃন খালার স্কীন। সুবর্না মুস্তাফার স্কীন ও মনে হয় এত মসৃন না। আমি মুখটা এবার একটু ছেড়ে দিয়ে আবার টিভির স্ক্রীনের দিকে তাকালাম। একটা এড দেখে আবার খালার ঘাড়ের দিক থেকে নীচের কনুই পর্যন্ত নামতে থাকলাম। আমার ঠেলা ধাক্কায়, খালার বুকের উপর জমানো শাড়ীর আঁচল কয়েক সেকেন্ডের জন্য সরে গিয়ে পরলো পেটের উপর। গভীর খাদ দেখা যাচ্ছে খালার ব্লাঊজের ভেতর মনে হচ্ছে খালার স্তনের চাপে যে কোন মুহুর্তে ব্লাউজের বিস্ফোরন ঘটতে পারে। খালা দ্রুত শাড়ীর আঁচল তুলতে তুলতে আমার হাত উনার বাম হাত দিয়ে সরিয়ে দিলেন। ।আর ডান হাত দিয়ে বুকের আঁচল দিয়ে বুক ঢাকলেন ।খালার বগলটা দেখতে পেলাম ফর্সা! সুন্দর, মসৃন কিন্তু খালার বগল মনে হয়, দ্যু সপ্তাহের মত কাটেন নাই, সেই পরিমান খাটো খাটো লোম । ছাড়ো এইবার বাবা, চলো অহন খাইতে যাই। আমি আবারো কাঁদো কাঁদো স্বরে বললাম।- না খালা আরেকটু। না !অহন খাওন লাগবো। তাইলে একটা শর্ত। কিতা? অবাক খালা, চোখ গোল গোল খাওনের পরে আবার তোমার হাতটা দিতে হবে। অহ আল্লারে এইডা আমি কোন পোলার পাল্লায় পরলাম, মাবুদ। -খালার মুখে কপট রাগ মনে হলো। আইচ্ছা, খাওনের পরে পইড়া লইবা, তার পরে। আইচ্ছা।–বলেই আমি লাফ দিয়ে খাওয়ার টেবিল এর দিকে যেতে থাকলাম। খালা এবার দেখলাম শারী দিয়ে পুরো উর্ধাঙ্গো ঢেকে দিয়ে আমার পিছন পিছন ডাইনিং এর দিকে আসতে লাগলেন। আর একটা কথা বললেন।- উহ…বুজি একটা রাক্ষস পোলা রাইক্ষ্যা গেছে।–বলা বাহুল্য আমাদের এলাকায় বড় বোন কে বুজি বলে। [যৌনতার ও একটা সুন্দর পোশাক থাকা উচিৎ। আমার কাছে সুন্দর একটা রুচিশীল যৌন গল্প সব সময়ই অনেক বেশী আবেদনময়ী। সেই দৃষ্টিকোন থেকে আমার এই গল্পটা লেখার চেষ্টা। আরেকটি বিষয় দেখারও ইচ্ছা সেটা হলো কিভাবে একটা গল্প এক সাইটে পোস্ট করার পর অন্য সাইটে যায় এবং কতদুর তা বিস্তৃত হতে পারে সেটা দেখা।এক ঝাক মাছের ভিতর যেমন একটুকরা খাওয়ার দেওয়া হলে যেভাবে কাড়াকাড়ি লাগে ঠিক তেমনই। আমার এই গল্প যে কেঊ যে কোন সাইটে পোস্ট করতে পারবেন। তবে লেখকের রেফারেন্স দেওয়াটাকে সৌজন্যতা মনে করি।] – জানভীরা খাওয়া দাওয়ার পর আমি কিছুক্ষন পড়তে পারলাম কিন্তু মন খালি বার বার আমার শিরিন খালার আকর্ষনে পড়া বাধাগ্রস্থ হতে থাকলো। আমার শরীরে এক অন্য ধরনের উত্তেজনা, বুক ঢিপ ঢিপ করছে, শরীরটাকে খুব বেশী হালকা মনে হতে থাকলো। আবার এদিকে ঘন্টাখানেক আগে পুরুষাঙ্গ ঢাউস হয়ে দাড়ানোর কারনে সেই যে তখন থেকে পাতলা লালা পরছিল তার রেশ এখনো আছে, কারন আমার এই অঙ্গটি আর কখনো একেবারে নরম হয় নি। কোন না কোন ভাবে শিরিন খালার শরীর কল্পনা করে সে অর্ধ উত্থিত হয়েই আছে। রাত প্রায় এগারোটা বেজে গেছে।নাহ আর পড়া যায় না। আমি আমার রুম থেকে বের হয়ে সোজা লিভিং রুমের দিকে গেলাম, উদ্দেশ্য শিরিন খালাকে পাবো। কিন্তু গিয়ে দেখলাম টিভি অন করা আছে কিন্তু খালা সোফায় নেই আমি খালার খোজে প্রথমেই খালার রুমে টক টক করে টোকা দিয়ে ঠেলে দরজা খুলে দেখলাম খালা নেই। আমি একটু অবাক হলাম। বাথরুমের দরজার দিকে তাকালাম, না ভেতরে কোন লাইট এর চিহ্ন পরলো না। আমি বারান্দার দিকে পা বাড়ালাম তখনই পেলাম খালা বারান্দা থেকে সব ধোয়া কাপড়-চোপর হাতে করে নিয়ে দরজা লাগিয়ে দিয়ে কাপড় গুলো সোফার উপরে রেখে আমাদের জানালাগুলোর পর্দা টেনে দিতে লাগলেন। আমাদের লিভিং রুমটা আর ডাইনিং রুম এর পর্দা টেনে দিলেন, কারন এই দুটি রুমের জানালা দিয়ে ভেতরের অংশ দেখা যায় পাশের বাড়ীগুলো হতে, তাই বাতাসে মাঝে মাঝে পর্দা যেন সরে যেতে না পারে সেকারনে খালা একেবারেই জানালার স্লাইডিং গ্লাস টেনে দিয়ে লক করে দিলেন। খালার উপরের অংশ শাড়ী দিয়ে নিখুতভাবে ঢাকা। বাইরের বিল্ডিং হতে কেউ দেখলে বুঝতেই পারবে না খালা ভেতরে হাতা-কাটা ব্লাউজ পরে আছে। ফিরে এসে সোফার উপরে রাখা কাপড়গুলো নিয়ে গিয়ে আমারটা আমার রুমের আলনাতে রাখতে লাগলেন। আমি মন্ত্র মুগ্ধের মত খালার পিছে পিছে গিয়ে আমি আমার রুমের দরজার চোউকাঠে হেলান দিয়ে দাড়ালাম। খালা তুমি এনটিভিতে হাউজফুল নাটক টা দেখছো? রেদোয়ান রনির আর ফাহমীর না? হ্যাঁ- আমি একটু অবাকই হলাম,খালা ডিরেক্টর এর নাম ও জানে। খুব মজা না? ভালাইতো লাগে।- খালা আমার জিন্সের প্যান্ট টা সোজা করতে গিয়ে,উপরে তুলে শুন্যে একটা বাড়ী দিতেই উনার ডান কাধের উপর থেকে শারীর আচল পরে গেলো আর খালা আলনাতে আমার জিন্সের প্যান্ট টা রাখার সময় আবার হাত টা উচু হলো, এবার আমার মনে হলো, খালা যেমন আমার বগলে নাকের ঘসা দিয়েছিলেন তেমনি আমার ও একটু নাক ঘষে দেওয়া উচিৎ তার বগলে। আমি শুধু দেখতে লাগলাম, সাদা ফর্সা মাংসল বাহুমুল সারা বগল জুরে গজিয়ে উঠা লোম। পাকা ধান ক্ষেত কাটতে গিয়ে কৃষকরা যেমন ধান গাছের গোরা রেখে দেয় তেমন।খাওয়ার পরে সেই থেকেই খালা পান চিবিয়ে যাচ্ছে। খালা এবার তার নিজের রুমে(আমাদের গেস্ট রুম) এ এলেন । ছোট্ট আলনাটাতে খালার ধুয়া শাড়ী-ব্লাউজ গুলো রাখছেন।ব্লাউজগুলোর প্রত্যেকটাতেই সামনের দিকে ট্রাউজারের মত গিট্ট ফিতা ঝুলছে। কাপড় রাখা শেষ হলে আস্তে করে খালা মাথাটা ঝাকি দিয়ে দুহাত পিছনে নিয়ে ড্রেসিং টেবিল এর আয়নায় তাকিয়ে চুলটা খোপা করে বাধলেন। উহ এক অপুর্ব দৃশ্য। আমি খালাকে বললাম। -টিভি দেখবানা খালা -নারে বাবা, শরীরডা বড় অবশ অবশ লাগতাছে। -তাইলে শুয়ে শুয়ে দেখো। -কের লাগিন রে বাপ। আমি একটু সাহস করে, আবার বেহায়া নির্লজ্জ্যের মতন বললাম –কেন তুমিই না বলছো খাওয়া ও পড়ার পরে একটু দিবা। -কিতা -তোমার হাতটা। -ও মারে দেখছো,”যে মরে যারে লইয়্যা আর লাইল্যা মরে কইতরী রে লইয়্যা” অহনও আমার বাজানে আমার হাতের প্রেম ভুলতো পারতাছে না। আবার খালা একটা সুন্দর হাসি দিল। আমি সাহস করে দরজা থেকে খালার রুমের মাঝে এসে খালাকে হাত ধরে আমি আমার রুমে নিয়ে আসার জন্য টানতে থাকলাম ,বললাম-চলো তুমি আমার রুমে আমার খাটে শুয়ে শুয়ে টিভি দেখবে। খালা আমার হাত থেকে তার হাত ছুটিয়ে নিতে নিতে বল্ল- রাহো রাহো বাবা, একটু পান-জর্দা মুখে দিয়া লই। খালা দেখলাম পুরোনো পানের দলাটা মুখ থেকে ফেলে দিয়ে নতুন একটা পান তার পানের বাটা থেকে নিয়ে সাথে কয়েকটা কৌটা থেকে হর পদের জর্দা মুখে পুরে বললেন -আগাও, আমি আইতাছি। খালা আমার পাছে পাছে আমার রুমের দিকে আসতে সময় ফিক করে হেসে বললেন -এক্কেরে তো শিয়ালের খোপে মুরগীরে পুইরা দিলা। আমার রুমের কম্পিউটার এর সাথে এক্সটারনাল টিভি কার্ড লাগানো আছে। বাবাকে বলে গত ফিফা বিশ্বকাপ খেলার সময় নিয়েছিলাম। মাঝে মাঝে ডিসকভারি নয়তো নেটজিও দেখি, আর মিডিল ইস্ট এর খবর আমাকে খুব বেশী টানে। বিশেষ করে ইস্রাইল-প্যালেস্টাইনের সংবাদ। খালা খাটে বসতেই আমি একটা বালিশ খালার দিকে দিয়ে বললাম খালা তুমি শুয়ে পড়, আরাম করে দেখ। কোন চ্যানেল দেখবা? আমার কুন পছন্দ নাই বাজান। তাইলে আমি ডিসকভারি টা দিলাম। আচ্ছা দেও। আমি ও খাটের উপর উঠে খালার পিঠের পিছনে গিয়ে দুইটা বালিশ দিলাম আমার মাথার তলায়, যেন খালার মাথার উপর ছাড়িয়েও আমি টিভির দিকে চোখ রাখতে পারি। টিভিটে হাতির জীবন চরিত্রের উপর একটা ডকুমেন্টারি দেখাচ্ছিল। আমি বললাম হাতি কিভাবে যোগাযোগ করে জান? কেমনে হাটার সময়ে পায়ের তলার নীচে যে শব্দ ও কম্পন হয় তার মাধ্যমে। ওমা তাই নাকি। আরেকটা জিনিস আছে খালা জানো। না কইলে কেমনে জানতাম। অন্যান্য চার পেয়ে প্রানীর যেমন দুধ থাকে পিছনে, হাতির কিন্তু সামনে থাকে। -ঠিক তখনি টিভিতে দেখা গেলো একটা ছোট হাতির বাচ্চা তার মায়ের পেটের তলে এসে সামনের দিকে দুধ খাওয়ার জন্য পায়ে পায়ে চলছে আর মুখ দিয়ে দুধে চোষন দেওয়ার চেস্টা করছে।আমার হাতটা তখন খালার পিঠে এনে ছোঁয়ালাম।খালা একটু নড়ে উঠলেন। -এই পিঠে হাত দেও কেন, তুমি না কইছ শুধু হাত ধরবা। বারে তাই বলে আমি তোমার পিঠে হাতও দিতে পারবো না নাকি।–আমার কেমন জানি একটা জেদ চেপে গেলো। আর খালার খোপা করা চুল হতে একটা সুন্দর সুগন্দ, সেই সাথে তার মুখ থেকে দারুন একটা জর্দার সুবাস। আমি আমার নাকটা খালার ঘাড়ে ঘসতে লাগলাম, চুলের শেষ প্রান্তে কিছু ছোট ছোট লোম, আমার নাক এই প্রান্ত থেকে ঘাড়ের ওই প্রান্ত করতে লাগলাম। খালার শরীর নড়া চড়া করতে লাগলো। -ইসসিরে পোলায় করে কি। খালা বাধা দিচ্ছে না দেখে আমি সাহস করে চুমু দিলামা কয়েকটা খালার ঘাড়ে, এবার চুমু দিয়ে একবারে খালার ঘাড়ের মাংস মুখের ভিতরে নিয়ে জিহ্বা দিয়ে ঘষতে লাগলাম।খালা ইসসস করে কেচোর কত শরীর মোচড়াতে লাগলেন।খালা একটা ঝটকায় আমার দিকে ফিরে বললেন- আমি কিন্তু তাইলে যাইমুগা এই রুম থাইক্যা।–খালার চোখটা জ্বলজ্বল করছে, রাগে কিনা বুঝতে পারালাম না। আইচ্ছা আইচ্ছা ঠিকা আছে খালা, আমি আর করবো না।হাতেই চুমু দেই।–বলেই আমি খালার বাম হাতটা ধরলাম। সেই কনুই থেকে উর্ধবাহু পর্যন্ত চুমু দিতে থাকলাম। বাহুটার ভেতরের দিকে দিতে থাকলাম। আবারো সেই বগলে নাক ঘষার ইচ্ছাটা জাগল। কনুই এর এখানে আমার বাম হাত দিয়ে ধরে খালার হাতটা উচু করলাম।একে বারে খালার মাথার পিছনে নিয়ে গেলাম। খালা তখনো টিভির দিকে তাকিয়ে আছে। আমি কনুই থেকে দুটি চুমু দিয়ে সোজা নাকটা খালার বগলে নিয়ে এলাম। আহ দারুন একটা হালকা মাদকতাময় গন্ধ। আমাদের মত এত ঝাজালো না। -এই!এই! খচ্চর পোলা করে কি, বগলে চুমা খায় নাকি, কেও? -বারে আমার বগল ছাটার সময়ে তুমি তো নাক দিছিলা -আমি কি চুমা দিছি নি? আমি খালার কথা না শুনে অনবরত নাক ঘসতে থাকলাম আর কয়েক সেকেন্ড পরে পরে চুমু দিতে থাকলাম, আমার ঠোঁট দিয়ে খালার বগলের ছোট ছোট লোম চাপ দিয়ে ধরে উপরের দিকে টানতে থালাম। খালা খিল খিল করে হাসতে লাগলেন, আর শরীর মোচড়াতে লাগলেন। -অও, দেখচো খাচ্চর পোলা করে কি, আহারে আমি সেই গোসল করছি কোন দুপুরে, শরীরডা পুছিওনাই, সারা শরীর এ গন্ধ হইয়া রইছে। -না খালা তোমার বগলে খুব সুন্দর গন্ধ, আমার মত বিশ্রী না। আমি এবার খালার হাত মাথার উপর থেকে নামিয়ে আবার হাতের উপর দিয়ে চুমু খেতে খেতে মাথার দিকে গেলাম। ঘারের কাছে গিয়ে আমি খালার কানের টব সমেত কানের লতিতে কয়েটা চুমু দিয়ে পুরো লতিটা আমার মুখে পুরে নিলাম।হালকা করে চুষতে লাগলাম। খালা দেখলাম আরামে চোখ বন্ধ করে আছে। হঠাৎ ঝারা দিয়ে উঠলো আমার চখের দিকে তাকাল, খালার শ্বাস-প্রশ্বাস দ্রুত। আমাকে যেন আক্রমনাত্তক কিছু বলতে না পারে তাই আমি সাথে সাথে বললাম। -খালা তোমার মুখের পানের গন্ধটা খুব সুন্দর। আমারে একটু দিবা। -হা করো, জিহবার উপরে রাখবাম, কিন্তু হাত দিয়া নেওয়ন যাইতো না।–বলেই খালা সব পান মুখের ভিতরে এক করে চাপ দিয়ে রসগুলো শুষে নিয়ে চিবানো পানটুকু উনার জিহ্বার আগায় এনে জিহ্বাটাকে সাপের জিহ্বার মতন বের করে স্তির করে রাখলেন। আমি এই ব্যাপারে প্রথম, অভিজ্ঞতা না থাকলেও কেমনে জানি বুদ্ধি খুলে গেলো। আমি আমার মুখটা নিয়ে গিয়ে খালার জিহ্বাটাকে আমার দুই ঠোটের ভেতর পুরে নিয়ে পানটুকু নিয়ে গেলাম। অবাক হয়ে গেলাম উনার জিহ্বাটা মনে হলো অনেক গরম।কেমন জানি আমার শরীর এ একটা গরম বাতাস ঢুকে গেলো। আমার অঙ্গ তো বলতে গেলে চাইনিজ কুড়ালের হাতলের মতন শক্ত হয়ে আছে। এখন পর্যন্ত দুই পায়ের ফাকে ঢুকিয়ে রেখেছি। খালার গলায় কয়েকটা চুমু দিয়ে মুখ তুলে বললাম। -খালা পান শেষ।আরেকটু দেও না। -রাক্ষস একটা। বলেই দেখলাম খালা তার জিহ্বাটা আবার বের করে ধরলেন।আমি দেখলাম খালার জিহ্বায় তেমন কোন পানের অংশ নাই। আমি মুখ নিয়ে সোজা খালার জিহ্বাকে মুখের ভেতর পুরে চুষতে লাগ্লাম। সমস্ত শক্তি দিয়ে চুষতে লাগলাম। আমার নেশা চেপে গেছে। আমার দম বন্ধ হয়ে যাওয়ার মত অবস্থা। আমি ছেড়ে দিয়ে দম নিয়ে আমার মুহুর্তের মধ্যেই খালার জিহ্বা টেনে নিলাম। খালাও দেখলাম এই মুহুর্তের ফাকে তার দম ছেড়ে আবার নিয়ে নিলেন। এবার মনে হলো আমি নই বরং আমার জিহবাটা আমার খালা চুষে দিচ্ছেন। আমি সুবিধা হওয়ার জন্য আমার শরীরটা অর্ধেক খালার উপর উঠিয়ে দিলাম। এতে আমার পুরুষাঙ্গ লাফ দিয়ে আমার দু’ পায়ের ফাক হতে আমার ট্রাউজারের ভেতর মুক্ত হয়ে গেলো আর খালার বাম উরুতে তার মাথা গুতো দিতে লাগলো। খালা কিছু বলছে না দেখে ভয়টা চলে গেলো। আমি আমার একটা হাত খালার বাম স্তনের উপর রাখলাম। মাগো কি নরম মনে হয় যেন একটা অল্প বাতাস দেওয়া বেলুনে হাত দিলাম।কিন্তু চেপ্টা হয়েও সারা বুক জুড়ে খালার বুক। আমি খালার জিহ্বা নিয়ে চুষতে থাকলাম আর এই ফাকে চালাকি করে খালার সেই ব্লাউজের গিট্টফিতার একটা মাথা ধরে টান দিতেই দেখলাম ফসকা গিড় টা ছুটে গেলো। আমি হুক খোলায় অভিজ্ঞ নই কিন্তু মনে মনে একটা বুদ্ধি আটকালাম। আমি খালার জিহ্বা হতে আমার মুখ মুক্ত করে আবার আমি খালার গলায় চুমু দিয়ে কান চুষতে লাগলাম। খালা “আহ” করে একটা শব্দ করলেন। আর চোখ বব্ধ করে রাখলেন। আমি লাফ দিয়ে পিছিয়ে গিয়ে একবারে খালার পেটের কাছে এসে ব্লাউজের তলে দুহাতের আঙ্গুল গুলো ঢুকিয়েই উপরে ঠেলা দিতেই শিরিন খালার ফর্সা দুধ দুটো বের হয়ে আসলো। বড় চিতই পিঠার মত বড় হবে খালার দুধের খয়েরী অংশটা, তার উপরে ছোট একটা বাদাম আকৃতির মত নিপল। বেশী বড় না। আমি মুহুর্তের মধ্যেই অন্য আর কিছু না দেখে খালার বাম স্তনের বোটা টা মুখে নিয়ে রাম চোষন দিতে থাকলাম। খালা “আও” বলে একটা শব্দ করে উঠলেন। আমি এত দ্রুত চুষতে লাগলাম যেন মনে হবে কোন ক্ষুধার্ত সন্তান তার মায়ের দুধ খাচ্ছে। এই ফাকে আমি চোখ খোলা রেখে খালার মুখের দিকে তাকালাম, দেখি শিরিন খালার মুখটা আগুনের মতই লাল, চোখা বোজা।আমি এবার চোষা অবস্থাতেই নীচ থেকে উনার ব্লাউজের একটা একটা করে বরশী হুক খুলতে লাগলাম। মাঝে দুবার বাম স্তন ছেড়ে আবার ডান স্তনের বোটায় মুখ দিয়েছি। কিন্ত ব্লাউজ উপরে জমে থাকায় পুরো স্তন যুগল ধরতে পারছিলাম না। আর মাত্র উপরের একটা হুক বাকী আছে। এমন শময় শিরিন খালা এক ঝটকায় উঠে বসলেন। -না না রনি বাবা এইতান ঠিক না। পাপ।তুমি আমারে পাগল কইরালাইছ। খালা উঠে দাড়িয়ে শাড়ী ঠিক করতে লাগলেন। শাড়ী তার ফ্লোরে পরে আছে, হাতা-কাটা ব্লাউজের তল দিয়ে তার বিসাল দুই স্তন বেরিয়ে আছে, গিট্ট ফিতাটা সামনের দুপাশে ঝুলছে।খালার চুলের খোপা খুলে গেছে, খালার মুখ আগুনের মত হয়ে আছে, খালার চেহারাটা একটা কামনা মদির দেবী যেন। -খালা তুমি যাইওনা, একটু থাকো। আমার রুম ছেড়ে খালার রুমে যাওয়ার পথে আমার দিকে ঘুড়ে তাকালো। -না বাজান, তুমি অহন ঘুমাও। আমি বুজিরে কিতা জওয়াব দিয়াম। আমি সিদ্ধান্ত নিলাম, যা করার আজকে রাতেই করতে হবে, বাসর রাতে বিড়াল আজকেই মারতে হবে। তাই আমিও খালার পিছে পিছে হাটা শুরু করলাম। লিভিং রুম হয়ে শিরিন খালা তার রুমে যাচ্ছেন আমি তার পিছে পিছে পিছে যাওয়ায় ফ্লোরে থপ থপ শব্দ শুনে খালা হালকা ঘাড় ঘুরিয়ে আমাকে দেখে দ্রুত তার রুমের দিকে যেতে থাকলেন, আমি বুঝতে পারলাম যে তিনি হয়তো রুমে ঢুকেই দরজা লাগিয়ে ফেলবেন তাই আমিও দ্রুত তার পিছে পিছে চলে আসলাম যেন দরজা লাগানোর আগেই আমি ঢুকে যেতে পারি। যা ভেবেছিলাম খালা তাই করতে চাইলেন, দরজা টেনে লাগিয়ে ফেলতে চাইছেন, আমি দরজার ডালাতে হাত দিতে ঠেলা দিয়ে শক্ত করে ধরে রাখলাম । -না, বাজান আমার, এইতা ভালা না, তুমি যাওগা তুমার রুমে গিয়া ঘুমাও, তুমার পরীক্ষা খারাপ হইবো। প্লিজ খালা,প্লিজ একটু -কিতা? আমি খালি একটু তোমার শরীরটা নিয়ে খেলতে চাই, বিশ্বাস করো আমি কিচ্ছু করবো না।(মিথ্যা কথা বলে খালাকে আস্বস্ত করতে চাইলাম।)-আমি অন্য কিছু বলতে সেক্স করাটা কে বোঝাতে চাইলাম। সেই সাথে আমাদের দরজার উপর চাপ-পাল্টা চাপ চলতে থাকলো। -না বাবা, রক্ত মাংসের মানুষ তো শেষে তুমি নিজেরে ধইরা রাখতে পারবানা, আমিও পারতাম না কিছু একটা হইয়া যাইবো।–এইদিকে আমার পুরুষাঙ্গ একবারে নাইনটি ডিগ্রী খাড়া হয়ে আমার ট্রাউজারের ভেতর তাবু তৈরি করে আছে। খালা হঠাৎ করে আমার পুরুষাঙ্গ দেখে বলল -মাগো!! রনি এইটা কি হয়ছে, তুমার এইহানে, ও খোদা- খালা প্লিজ তুমার পায়ে পড়ি- আমি আমার ডান হাতটাকে দিয়ে দরজার চাপ ফিরাতে লাগলাম আর বাম হাতটা খালার মাথার উপর রেখে বললাম।কসম খাচ্ছি আমি তোমার পেটের নীচে নামবোই না, খালি তোমার দুধ টা নিয়া একটু খেলা করবো। -কসম কাডো। আবার হাত রেখে বললাম, কসম। এবার খালা দরজা ফাঁক করে সরে দাড়িয়ে বিছানার দিকে হাটা দিল। আমি ভিতরে ঢুকেই খালাকে পিছন থেকে রুমের মাঝ খানে জড়িয়ে ধরলাম। সেই পিঠ ঢেকে আছে কমর অবধি লম্বা আধাভাঙ্গা কোকরা চুল। আমি চুলগুলো দ্রুত ঘাড়ের এক পাশে সরিয়ে আবারো ঘাড়ে চুমু দিলাম, চুমু দিতে দিতে আস্তে করে কামড় দিলাম -ইস……মাগে বুজির পুলা আমারে আজগা মাইর‍্লাইবো।–হিসিয়ে ঊঠলো আমার খালা। আমার পুরুষাঙ্গ খালার পাছায় গুতো দিতে লাগলো। খালা নিশ্চয় টের পাচ্ছে, পাক। আমার আর এখন লজ্জা করছে না। আমার মনে হচ্ছে কোথায় যেন প্রাথমিক যুদ্ধে জয়লাভ করে ফেলেছি। আমি খালাকে আর সামনের দিকে এগুতে দিলাম না, যেহেতু শর্ত আমি খালার পেটের নীচে তাকাবো না তাই, বিছানাটা আমার কাছে গুরুত্বপুর্ন মনে হলো না, বরং রুমের মাঝখানে দাঁড়িয়ে এভাবে চলতে থাকলে আমি পুরো মজাটা নিতে পারবো। আমি খালার বাম কান আবার হালকা কামড় দিয়ে ধরে ইয়ার লোব(কানের লতিকা) মুখে নিয়ে চুষতে লাগলাম। -আহ…করে খালা ঝাকি দিয়ে উঠলো। পিছন থেকে পালাক্রমে বাম কান, ঘাড়।ডান কান এভাবে একে একে চলতে থাকলো আমার আদর করা। এটা করছিলাম খালার দুই সোলার ব্লেড এ হাত রেখে। আসলে এতক্ষন বিরতির পরে স্তনে হাত দিতে একটা সংকোচ করছিলো। আমি সংকোচ ঠেলে সরিয়ে, হাত দুটিকে খালার সামনের দিকে নিয়ে একবারে পেটের কাছে গিয়ে পেলাম খালার স্তনের বোটা, দুইটা ঝুলন্ত লাঊ যেন। দারুন সফট আর মসৃন। মনে হলো আমার হাত পিছলিয়ে যাবে। আমি দুহাতে খালার দুই স্তনের বোটা নিয়ে আলতো আলতো করে চাপতে ও টিপতে লাগলাম। আমি ঘুরে সামনের দিকে এসে খালাকে বললাম -পান দেও -পান নাই, সব তো খাইলা-খালার কথায় কোথায় জানি একটা মাদকতা, খালা মুখ দিয়ে এখনো সেই জর্দার হালকা গন্ধ।আমি জানি পানের উছিলা ছাড়া আমি এখন খালাকে চুমু খেতে পারবো না। -হা করো, অবাক হলাম, খালা নিঃশব্দে মুখ হা করলো।কিন্তু জিহাবা বের করলো না। জিহ্বা বের করো রোবটের মত খালা জিহ্বা বের করলেন। আমি পুরোটা মুখের ভেতর নিয়ে চুষতে লাগলাম। অনেক জোর করে যতটুকু নেওয়া যায়।আর খালার স্তন হালকা হালকা চাপে টিপতে থাকলাম।মুখ থেকে মুখ সরিয়ে এবার খালার চোখে, কপাল্‌ গলায় আবার ফিরে এসে মুখে যাওয়ার আগে বললাম খালা তুমি কিন্তু আমাকে একটাও চুমু দিলা না। আমি খালার জবাবের অপেক্ষা না করে পুনরায় ঠোটে মুখ নিয়ে চুমু দিতেই এবার আশ্চর্য হয়ার বিষয় যে খালা নিজেই হা করে মুহুর্তের ভেতর আমার জিহ্বাকে টেনে নিয়ে আগ্রাসী চুমু খেতে লাগলেন। পাগলের মত, অনেক্ষন ধরে খালা তার জিহ্বা একবার আমাকে বাড়িয়ে দেয়, তো আরেক বার আমি আমার জিহ্বা খালাকে বাড়িয়ে দেই। দুজনের ই শ্বাসপ্রশ্বাস ঘন হয়ে ফোস ফোস শব্দ হতে লাগলো। আমার মনে হলো এবার আমাকে অন্য জায়গায় যেতে হবে। আমি অনেকটা জোর করে খালার মুখ হতে আমার জিহ্বা বের করে ধাম করে হাটু গেড়ে ফ্লোরে বসে গেলাম, খালা দাঁড়িয়ে আছেন। আমার কপালের ঊপর খালার ঝুলে পড়া বিশাল দুই স্তন, আমি ডান স্তনের বোটা ঘাপ করে মুখে দিলাম, যেমন করে বোয়াল মাছ, অন্য মাছ কে শিকার করে।চুষতে থাকলাম, কামড় দিলাম বেশ জোড়ে, মুখের লালায় ভিজে গেল খালার স্তনের লাল চাকতি। আমার এই সহসা নতুন একশানে খালা ফিস ফিস করে বললেন -উহ……রনি বাজান,‌ আস্তে কামড়াও লাগতাছে। সরি খালা। আমি স্তনের বোটা মুখে আবার নিয়ে,দাঁত আড়ালে রেখে ঠোট ও জিহ্বার সমন্বয়ে চুষে যেতে থাকলাম। আমার খালা আমার মাথাটাকে উনার পেটের উপর চেপে ধরলেন।এবার উনি নিজেই ডান স্তন হতে আমার মুখ ছড়িয়ে বান স্তনের বোটাটা আমার মুখে পুড়ে দিলেন। আমি চোখ খুলে ছিলাম। দেখলাম খালা চোখ বুজে আছেন। তার শরীরে এখনো সে স্লিভলেস ব্লাউজ, উপরের হুকটা শুধু লাগানো আছে। আমি নীচ থেকেই দু হাত দিয়ে খালার সেই হুক টাকে খোলার চেষ্টা করতে লাগলাম, কিন্তু পারছিলাম আমার এই চেষ্টা দেখে খালা চোখ খুলে তাকালেন। তিনি আমার হাত সরিয়ে নিজেই তার হুক টা খুলে ব্লাউজটাকে মাথার উপর দিয়ে খুলে এক ঢিল দিয়ে রুমের খাটের উপরে ছুড়ে দিলেন।খালা দুইহাত মাথার পিছনে নিয়ে পিঠের উপর ছড়িয়ে পরা চুলগুলোকে একত্রে এনে কব্জীর আড়াই প্যাঁচে একটা খোপা করলেন। ঘরে কোন বাতি জ্বলছে না। লিভিং রুম এবং ডাইনিং রুমের আলো মিলে বেশ একটা শেড লাইট তৈরী হয়েছে। আবাড়ো খালার সেই মোহনীয় ভঙ্গী শেড আলোতে খালার দুর্দান্ত ফর্সা শরীর দুধ মেশানো কফির মত রঙ ধারন করেছে, বগলের দু সপ্তাহের চুল দারুন একটা স্পট হয়ে আছে। আমি এবার খালার নিতম্বটাকে দুহাতে পেচিয়ে ধরে আমার থুটনিটা খালার পেটের উপর স্থাপন করে একমনে এই স্তন ছেড়ে আরেক স্তন চুষে যেতে থাকলাম। খালার নিতম্বে আমার দুহাত দিয়ে আটা মাখানোর মত টিপ চালিয়ে যেতে থাকলাম, হঠাৎ মাথায় কি এক দুষ্টু বুদ্ধি চাপলো। আমি আমার ডান হাতের সবগুলো আঙ্গুল শাড়ী ও পেটিকোট এর সমেত খালার পাছার খাজে জোরে ঢুকিয়ে দিলাম। -এই বান্দর পোলা কর কি? বলেই খালা হেসে উঠলেন। খালার উর্ধাঙ্গের শাড়ী এতক্ষনে আমাদের পাশে ফ্লোরের উপর আশ্রয় নিয়েছে। নীচের টুকু পেটিকোটের উপর গেথে থাকার কারনে শরীরের উপর টিকে আছে।আমি এবার দাঁড়িয়ে খালার মুখের কাছে আমার মুখ আনতেই আমাকে আর কিছু করতে হলো না, খালাই কেঊটে সাপের মত ছোবল মেরে আমাকে চুমু খাওয়া শুরু করলেন। এবার মনে হলো খালার জিহ্বা আমার চেয়ে তিন ডিগ্রী বেশী গরম। আমাকে চুমু খাওয়া অবস্থাতেই আমি খালাকে সামনে থেকে পিছনের দিকে আস্তে আস্তে অর্থাৎ খাটের দিকে ঠেলতে থাকলাম। আমার মনে হয় খালা আমার মনের কথা বুঝতে পেরেছেন।তিনি নিজেও পিছাতে থাকলেন। খালার পিছনে খাটের অস্তিত্ব অনুভব হওয়ায় তিনি থামলেন, আমরা চুমু পর্ব চালিয়ে যেতে থাকলাম। আমি খালার কাঁধে হাত দিয়ে নীচে বসার জন্য চাপ দিলাম। আমি আমার মুখ সরিয়ে নিলাম খালার মুখের উপর থেকে। আমি দাঁড়িয়ে থাকলাম। খালা বসে পড়েই আবার উঠে দাড়ালেন। উনি উনার শাড়ীটাকে হাতে ধরতেই আমার মনে হলো উনি শাড়ীটাকে খুলে ফেলবেন। কিন্তু না আমাকে অবাক করে দিয়ে শাড়ীটা দিয়ে উনার নগ্ন উর্ধাঙ্গ ঢেকে দিলেন। আমি হতবাক হলাম। খালা শাড়ীটা খুলে ফেল না। -না, ব্লাউজ ই তো খুলছি। অহ! কথাটার মধ্য দারুন একটা সেক্স আছে। আমি আর কিছু বললাম না। খালা খাটে বসতেই আমি খালার পাশে বসে আবারো চুমু দিতে শুরু করলাম। আমি খালাকে বালিশের উপর চেপে শুইয়ে দিলাম, আমি উনাকে ডিঙ্গিয়ে উনার পাশেই শুয়ে পরলাম। আবারো তার শাড়ী সরিয়ে স্তন নিয়ে চুষতে লাগলাম। দুধ ছেড়ে মুখে গেলাম। শুয়ে শুয়ে সুবিধা করতে পারছি না তাই হামা দিয়ে উঠে খালার বুকের উপর আমার বুক রেখে চুমু দিলাম। আমি কৌশল করে খালার শাড়ী সরিয়ে মাথার পিছনে রেখে দিলাম। বাকিটা তার পিঠের নীচে চাপা পরে আছে। আমি উঠে আমার গায়ের টি শার্ট খুলে ফেললাম। আমি যেই আমার ট্রাউজারের কোমর ব্যান্ড এ হাত দিলাম তখনি খালা আঁতকে উঠে বললেন -এই না, না বাজান ট্রাউজার খুইলো না। তুমি ল্যাঙটা হইতাছো কেরে? কিতা কথা আছিন? আমি খালার কথা না শুনে একটানে আমার ট্রাউজার খুলে ফ্লোরে ছুড়ে ফেলে দিলাম। আমার অঙ্গ যেন একটা কুড়ালের হাতল এর মত শক্ত চক চক করছে। আমার শরীর এর নড়াচড়ায় ডানে-বামে দুলছে। আমি খালার মত এত ফর্সা নই। আমার রঙ উজ্জ্বল শ্যামলা। তবু এই আধো অন্ধকারে আমার জানু দেশ থেকে এই অঙ্গটাকে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। -মাগো এইটা কি বানাইছো তুমি বাবা। তুমার খালুর তো এইটার অর্ধেকও আছিল না। আমি বুঝতে পারলাম আমার অঙ্গটা আসলে ছোট না। তবে এটা যে প্রশংসা কুড়াবে ততটা বড় আমি ভাবিনি। আমি হাটু সোজা করে এগিয়ে নিয়ে খালার দিকে দিতে চাইলাম যেন খালা এটা ধরে। -না না বাজান, এইটা তুমি আমার গায়ে লাগাইওনা।আও বলে খালা আমাকে বুকের উপর টেনে নিলেন যেন আমার পুরুষাং ধরতে না হয়। আমাকে অনেক রসিয়ে চুমু দিতে থাকলেন। আমি চুমুর মধ্যই আমার একটা হাত দিয়ে খালার বাম হাতটি টেনে নিয়ে আমার অঙ্গে রাখালাম। -উঁহু…… বলেই খালা ঝটকা মেরে হাতটা সরিয়ে নিল। তুমি না কইছ খালি আমার দুধ লইয়া খেলবা?!! তাহলে এটা কি করবো খালা।-আমি আমার পুরুষাঙ্গের দিকে ঈশারা করে বললাম। আমি অনেকটা রাগে ঝাড়া দিয়ে বল্লাম-আমার এখন রীতিমত ব্যাথা করছে তুমি জানো। আমি খালার হাটুর কাছে হাত নিয়ে তার পেটি কোট সমেত শাড়ী উপরে ঠেলে তুলে দিতেই খালা আবার বলল -বাজান না আমার এইতান করে না। বলেই খালা আমার মুখটা জোর করে ঘুরিয়ে আমার মুখে তার বাম স্তন ঠেসে ধরে বলল- -নেও আমার দুধু খাও।লক্ষী রনি বাপ আমার।আমি তুমার মার বইন খালা হই না!! আমার কপালে একটা চুমু দিলেন তিনি। আমি জানি খালার অই দুই উরুর ফাকেই আমার মুক্তি কাজেই আমাকে ওখানেই যেতে হবে। আমি খালার উপরে উঠে আমার পুরুষাঙ্গ খালার যোনি যেখানে হতে পারে, ঠিক সেখানে অনুমান করে শাড়ী-পেটিকোটের উপর দিয়ে চাপতে লাগলাম ও ঘসতে লাগলাম। সুবিধা করতে পারলাম না মনে হলো আমার পুরুষাঙ্গের মাথা ছিলে যাবে। আমি আমার বাম হাত টা খালার পায়ের গোড়ালীতে একটু ঝুকে নিয়ে গিয়ে,পেটিকোট সমেত শাড়ীটাকে উপরে তুলতে চাইলাম, যেন খালার যৌনাঙ্গ আমার কাছে উন্মুক্ত হয়ে যায়,তাহলে সরাসরি আমার অঙ্গ চালনা করতে পারবো।যদিও তার কিছুই আমি জানিনা। আমার এই হঠাৎ নতুন ধরনের আক্রমনে খালা হকচকিয়ে গেল। -ইয়াল্লা বাজান এইতা করে না। স্বামী স্ত্রী ছাড়া এইতা করন যায় না। আমি এবার সোজা খালার মুখের দিকে তাকিয়ে আমি দু’হাটুতে ভর দিয়ে আমার খাড়া অঙ্গটা দেখিয়ে বললাম-তাইলে আমি এইটা কি করবো তুমি জানো আমার কি পরিমান ব্যাথা করতেছে। সত্যি আমার পুরুষাঙ্গ এত শক্ত হয়ে আছে মনে হলো যে কোন মুহুর্তে এটা ফেটে যাবে, আমি একটা ব্যাথা অনুভব করতে থাকলাম। -আইচ্ছা বাজা একটা কাম কর কি -তুমার লোশান ডা লইয়া আও, যেইডা হেইদিন আমার হাতে মাইখ্যা দিছিলা। লোশন দিয়ে কি হবে। -আনোই না। আমি দ্রুত বলতে গেলে দৌড়ে গিয়ে, আমার রুম থেকে গিয়ে নিভিয়া মিল্কটা নিয়ে এলাম। শিরিন খালা ডান হাত পেতে ঢালতে বললেন, হাতে নেওয়ার পর বললেন। -এইটা রাইখ্যা আমার কাছে আও সোনা। আমি আর রুমে না গিয়ে লোশান টাকে ফ্লোরেই রেখে খালার পাশে উঠে আসতেই খালা আমাকে বুকে টেনে নিলেন। চুমু দিতে লাগলেন আগ্রাসী। মুখটা ঠেলে আবার বুকে নিলেন,আমি চুষতে থাকলাম। কিন্তু লোশান দিয়ে খালা কি করবে, বুঝলাম না।খালা বললেন -তোমার দুই পা আমার আমার কোমরের দুই দিকে দিয়া আমার উপরে উঠ সোনা। আমার দুধ চোষ। আমি উঠলাম, দুধ চুষতে পারলাম না কারন খালা একই সাথে চুমু চালিয়ে গেলেন। আমার পুরুষাঙ্গ মাঝে মাঝে খালার শারী সমেত তলপেটে বাড়ি দিচ্ছিল। হঠাৎ মনে হল একটা পিচ্ছিল কি যেন আমার পুরুষাঙ্গ টাকে গিলে খেয়ে ফেলেছে। আমি ঝাকি দিয়ে একটু মাথা উচু করে দেখলাম লোশন সহ খালার ডান হাত আমার অঙ্গে খালা পেচিয়ে ধরেছেন। উপর নীচ করছে। অহ! দারুন এক আরাম হচ্ছে। খালা আমার সাথে চালাকি করেছে। এভাবে আমাকে বিদায় দিতে চাইছেন। আমি খালার মুখের দিকে চাইতেই খালা মনে হয়ে বুঝেছে আমি ক্ষেপে গিয়েছি। -এইভাবে করো বাজান, আরাম পাইবা, আমি বুইড়া হইয়্যা গেছি, আমার অহন কিছু নাই। আর জিনিস যেইডা বানাইছো, এইডা ভিতরে নিলে আমার সিলাই লাগবো ছয়ডা। মানে? -মানে বুঝনের কাম নাই, তুমার খালুর টা আছিল এর অর্ধেক।তুমি তো তুমার বউরে বাসর রাইতেই মাইরালাইবা। কি বলো খালা, কিচ্ছু বুঝি না। -মানে তুমার সোনার সাইজ, অত্তো বড় মাইনষেরনি হয়, এই রহম হয় ঘোড়ার-বলেই খালা খিল খিল করে হাসতে লাগলেন। সেই সাথে বেশ জোরে জোড়ে উনার হাত দিয়ে আমার পুরুষাঙ্গ মৈথুন করতে লাগলেন।আমি যেন পাগল হয়ে গেলাম। আমি খালাকে আস্টে-পিষ্ঠে জরিয়ে ধরলাম। পাগলের মত খালার দুধ চুষতে লাগলাম, কামড় দিতে থাকলাম, কোমর চালাতে লাগলাম খালার হাতের ভেতর, আমার হুশ নাই,খালা শিঊরে উঠলেন। -আস্তে বাজান ব্যাথা দিও না, নারী মানুষের শরীরে আস্তে আস্তে আদর করন লাগে, তুমরা পুরুষরা এই ভুলডাই কর।আমি একটু লজ্জা পেলাম। দুধ ছেড়ে চুমু দিতে থাকলাম। এদিকে খালার হাত চালনা অনেক জোরে হতে থাকলো লোশান মাখানো আমার পুরুষাঙ্গ আর হাত থেকে একটা প্যাচ প্যাচ শব্দ হচ্ছে ।কিন্তু সমস্যটা আমরা এতক্ষন দুজনেই বুঝতে পারলাম । প্রায় বোধ হয় মিনিট পনের হয়ে গেছে, আমার অঙ্গ সমান ভাবে চলেতে থাকলো খালার লোশান মিশ্রিত হাতের ভেতর। কিন্তু খালা এতক্ষনে অধৈর্য হয়ে গেছেন, বার বার বলছেন -বাজান আউট কর, আমার হাপানী উইঠ্যা গেছে। মাগো অত্তো শক্তি তুমার শইল্ল্যে। আমার ও মনে হতে থাকলো খালার যৌনাঙ্গে ঢুকাতে পারলেই বোধ হয় আমার তৃপ্তিতে আমি আউট করতে পারবো। আমি সেই আশায় বললাম। খালা তোমার অঙ্গের ভিতরে ঢুকাতে দেওনা, দেইখ্য আমার বীর্য বের হয়ে যাবে। -না বাজান, আমি না তুমার খালা হই। তাইলে এতক্ষন আমার ধন নিয়ে এইসব করছো কিভাবে। -হেইডাতো মন্দের ভালা, তাছড়া ভয় আছে। কিসের ভয়? আমি সেই একই ভাবে আমার অঙ্গ খালার হাতের ভেতর চালাতে লাগলাম।খালার বাম হাতটা মাথার উপরে নিয়ে বগলে চুমু খেলাম, এবার বগলে বেশ একটা ঝাঝালো গন্ধ পাচ্ছি, খালা এতক্ষনের পরিশ্রমে ঘেমে গেছেন খালার বগলে বেশ ঘাম জমে স্যাঁতস্যাঁতে হয়ে গেছে। খালার কপাল ও ঘামে চক চক করছে। -এই সময়ে করলে পেটে বাইচ্চ্যা হইয়া যাইবো। আট-দশদিন আগে আমার মাসিক হইছে। কনডম ছাড়া ডুকাইলেই বিপদ। আরে তাইতো আমি তো একটা রাম গর্ধভ। আমার মাথাতে তে এই বুদ্ধীটাই আসেনি একটা মেয়ের কাছে তার যৌন মিলনের আগে তার চাহিদা অনুযায়ী নিরাপদ করে নিতে হয়। তাইলে খালা কনডম নিয়ে আসি। -কই থাইক্যা? দোকানে? -ধুর পাগল এত রাইতে- খালার খিল খিল হাসি, অন্য সময় যাইও। আমি খালার এই হাসিতে বুঝে গেলাম খালার যৌনাঙ্গে আমি ঢুকাতে পারবো। কনডম হলেই। আবার লোশান ডা একটু লও ।-খালার হাত শুকিয়ে গেছে। আমি খালার শরীর এর উপর থেকে উঠে ফ্লোর হতে লোশন এর বোতলটা নিলাম। পাশের রুমের লাইটের আভায় দেখতে পেলাম আমার পুরুষাংটা আমার তপেটের নীচে একটা অজগরের মত চক চক করছে খালার হাতের মাখানো লোশান এর কারনে। খালা হাতের মধ্য বেশ খানিকটা লোশান নিলেন, আমি আগ্রহ সহকার খালার কোমরের কাছে বসে আছি খালা আমার অঙ্গটা নিজে টেনে নিবেন, কিন্ত অবাক হয়ে দেখলাম, খালা পুরা লোশানটুকু তার বুকের মাজে রাখলেন এবং মালিশ করে তেলতেলে করলেন এবার পাজরের দুপাশে পরে থাকা অতিশয় বড় দুই দুধ টেনে এনে এক করলেন -আসো বাজান আমার দুই দুধের মাঝখানে তুমার ধন টা রাখ-খালার মুখে ধন শব্দটা শুনে কেমন শরীর টা গরম হয়ে গেল। আর এইটাই বা কি রকম পদ্ধতি, দেখে আমি একটু অচল হয়ে রইলাম। -আসো বাজান এইভাবে দুধের মধ্যে করলে আরাম পাইবা। হাত মাইরা তো দেখলাম বাইর করতে পারলাম না।। আমি এইবার উঠে খালার বুকের উপর দাঁড়িয়ে পরলাম। তারপরে হাটূতে দুপাশে ভর দিয়ে ধনটা খালার বুকের কাছে আনতেই খালা তার দুধ দুইটা দুপাশে ছেড়ে দিয়ে ধনটাকে তার বুকের মাঝ খানে স্থাপন করতে দিলেন, স্থাপন করার সাথে সাথেই আবার দুপাশ থেকে তার দুধ দুইটা এনে আমার ধনটাকে চেপে ধরলেন। সতিই তো দারুন আরাম। মনে হলো আমার অঙ্গটা একটা মাখনের পূটলার ভেতর ঢুকে গেল। আমাকে আর কিছু বলতে হলো না। আমি আগে পিছে আমার কোমর ঝাকাতে লাগলাম। চোখ বন্ধ করে ঝাকাচ্ছি। হঠাৎ মনে হলো একটা নরম ও গরম কিসের আদ্র ছোয়া পেলাম। চোখ খুলে দেখি, খালা তার জিহ্বা দিয়ে আমার অঙ্গের মাথায় বাড়ি দিচ্ছেন যখন আমার ধনের মাথা তার মুখের কাছে দিয়ে যাচ্ছিল। আমি আহ করে উঠলাম।আমি আর পারছি না, দুধের চাইতেও এটাতে মজা। আমি আমার দুপায়ে একটু উচু হয়ে আমার ধন টা পুরো খালার মুখের ভেতর দেওয়ার চেষ্টা করলাম। খালা দেখলাম কিচ্ছু বললেন না, কিন্তু সত্যিই আমার ধোনের মাথার ইঞ্চি দুয়েক মুখের ভেতর নিলেন। আহা আমার মনে হতে থাকলো যে আমার শরীর সাগরের অতল জলে যেন হারিয়ে যেতে লাগলো। খালা এবার একটু বার করে আবার মুখে নিলেন। কি গরম খালার মুখ, জিহ্বা। এবার খালা তার দুহাতে ধরে রাখা দুধ ছেড়ে দিয়ে। আমার অঙ্গটাকে দুহাতে ধরে আইস্ক্রীমের মত চুষতে লাগলেন।ধীরে ধীরে আগে পিছে করে চুষতে লাগলেন। চস, চস করে শব্দ হতে লাগলো, মনে হলো খালা সন্মোহিত হয়ে এ কাজটি করছে। এবার খালা আমার পুরুষাঙ্গটাকে বার করে তার ফুটোর ভেতর খালার জিহ্বাটাকে হালকা চাপে ঢুকাতে চাইলেন। আহ খালা- আমি আর পারলাম না, খালার আদর বাদ দিয়েই আমি জোর করে খালার মুখে আপডাউন করাতে লাগলাম আমার অঙ্গ। আমার মনে হলো আমার শরীর ঝাকি দিয়ে আমার পুরুষাঙ্গ বেয়ে কি যেন একটা বেরিয়ে আসছে। আমি তবুও চালাতে থাকলাম। শেষ মুহুর্তে বলতে পারলাম শুধু খালা আমার পেনিস দিয়ে কি যেন বের হচ্ছে। সাথে সাথে খালা আমার অঙ্গটাকে মুখের ভেতর থেকে বের করে আনতে লাগলেন, কিন্তু যা হওয়ার তা হয়ে গেছে। আমার পেনিস ফেটে যেনো, খালার কপালে, মাথায়, গালে আমার বীর্য বের হলো। আমি আমার চোখে অন্ধকার দেখলাম। মাথাটা ঝাকি দিয়ে ঘুরে উঠলো।এই প্রথম স্বপ্ন দোষ ছাড়া আমি আমার বীর্য বের হতে দেখলাম, কি তীব্র স্পীড। যেটা আমি বাথ রুমে হস্ত মৈথুন করতে গিয়েও বের করতে পারিনি।,আহ আমি হাফ ছেড়ে দম নিলাম, লম্বা করে।আমি খালার বুকের উপর থেকে উঠে খাটের উপর দুহাত পিছনে হেলান দিয়ে বসলাম। -দেখছো খাচ্ছর পোলা আমার মুখটাই ভইরালাইছে। বিছানাডাও দিছে নষ্ট কইরা।–খালা মুচকি মুচকি হাসতে লাগলেন। আবার পরম স্নেহে খালার শাড়ীর আচলটা দিয়ে আমার পুরুষাঙ্গের মাথায় এখনো টিপ টিপ করে যেটুকু বীর্য বের হচ্ছিল তা মুছে দিলেন। আমি বললাম -সরি খালা আমার হুশ ছিল না। -যাক অহন হুশ হইছে তো। ঠান্ডা হইছো বাজান? আমি চুপ করে রইলাম। কিছুক্ষন পরে খালা বললেন –যাও বাথ রুম থাইক্যা ধুইয়া ফ্রেশ হও। খালা উঠে বসলেন। শাড়ী জড়াতে লাগলেন। অনেক ক্লান্তি খালার শরীর এ। আমার মনে হলো আমি কি যেন দেইনি খালাকে, শুধুই নিয়েছি। আমাকে কিছু দিতে হবে। আমি দ্রুত ফ্লোর থেকে আমার ট্রাউজার টা পরে খালাকে বললাম খালা তুমি বাইরের দরজটা লাগাও। -কেরে বাজান, কই যাইবা?! আমি কিছুই বললাম না।আমি দ্রুত খালার রুম হতে বের হয়ে আমার রুমে এসে শার্ট গায়ে দিলাম। প্যান্ট এর পকেট হতে মানি ব্যাগ টা নিলাম। খালা আমার পিছে পিছে এসে আবারো বলল -রনি, বাজান কই যাইবা এত রাইতে। আমি ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখালাম মাত্র বাজে এগারো টা চল্লিশ। ঢাকা শহরে এখনো অনেক দোকান খোলা। আমি বললাম ,ফার্মেসীতে। -ফার্মেসীতে কেরে বাজান। তোমার জন্য খালা, কনডম আনতে। দরজা লাগাও। আমি আর খালার মুখের দিকে তাকালাম না। খালা দরজা লাগানোর আগে শুধু শুলাম খালা বললেন-পাগল পুলারে

Tags:

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: